ছারছীনা দরবার শরীফের ১২৮তম বার্ষিক ইছালে ছওয়াব মাহফিল নতুন প্রজন্মকে ইসলামের সঠিক আকিদা ও আমল আখলাকে উজ্জীবিত করুণ…ছারছীনার পীর ছাহেব

ছারছীনা দরবার শরীফের ১২৮তম বার্ষিক ইছালে ছওয়াব মাহফিল নতুন প্রজন্মকে ইসলামের সঠিক আকিদা ও আমল আখলাকে উজ্জীবিত করুণ...ছারছীনার পীর ছাহেব

মুহাম্মদ আবদুর রহমান গাজী,।। ছারছীনা দরবার শরীফের ১২৮তম ৩ দিনব্যাপী বার্ষিক ইছালে ছওয়াব মাহফিল ও বাংলাদেশ জমইয়াতে হিযবুল্লাহর সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। গত ১১ মার্চ রবিবার বাদ ফজর মাহফিলের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হয় জিকিরে তালীমের মাধ্যমে। মঙ্গলবার বাদ জোহর আখেরী মোনাজাত পরিচলনা করেন আমীরে হিযবুল্লাহ ছারছীনা শরীফের পীর ছাহেব আলহাজ্ব মাওলানা শাহ্ মোহাম্মদ মোহেব্বুল্লাহ (মাঃজিঃআঃ)। মোনাজাতে লাখ লাখ ভক্ত মুরিদানের আল্লাহুম্মাআমিন ধ্বনিতে সন্ধ্যা নদীর তীরে ছারছীনা দরবার শরীফে কান্নার রোল পড়ে। আখেরী মোনাজাতকে কেন্দ্র করে ঐ এলাকার কয়েক কিলোমিটার লোকে লোকারণ্য হয়ে যায়। মোনাজাতের পূর্বে পীর ছাহেব বলেন, মানুষের ঘরে ঘরে পৌঁছে জমইয়াতে হিযবুল্লাহর দাওয়াত পৌঁছে দিন। ইসলামের শান্তির বার্তা মানুষের কল্যাণে পৌঁছে দিতে ছারছীনা দরবার অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে। শতবর্ষের ছারছীনা দরবার সুন্নাতে নববীর আদর্শের উপর প্রতিষ্ঠিত। এখানে সুন্নাতের খেলাফ কোনো আমল করা হয় না। মানুষকে আল্লাহমুখী করাই হলো ছারছীনা দরবারের কাজ। তিনি আরো বলেন, হক্কানী আলেম তৈরি করতে এ দেশের সর্বত্র দীনিয়া মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করছি। বর্তমানে দেশে প্রায় আড়াই হাজার দীনিয়া মাদ্রাসা হয়েছে। আপনারা আপনাদের আত্মীয় স্বজন ও সন্তানদের দীনিয়া মাদ্রাসায় ভর্তি করুন। আজকে দেশে অনেক আলেম আছে। কিন্ত হক্কানী আলেমের বড়ই অভাব, যাদের থেকে পথহারা মানুষ হেদায়াতের আলো পাবে। তারাই যদি গোমরাহী হয়, তাহলে সাধারণ মানুষকে ইসলামের সঠিক পথ দেখাবে কে। নতুন প্রজন্মকে ইসলামের সঠিক আকিদা ও আমল আখলাকে উজ্জীবিত করুণ । নিজ ঘর থেকেই দাওয়াতী কাজ ও তা’লীমের কাজ শুরু করতে আহবান জানান। ছারছীনা দারুচ্ছুন্নাত জামেয়া-এ-ইসলামিয়ার অধ্যক্ষ ড. সৈয়দ শরাফত আলীর সঞ্চালনায় সমাপনী দিনে বক্তব্য রাখেন জাতীয় সংসদের চীফ হুইফ আসম পিরোজ, ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের স্থায়ী কমিটির সভাপতি মাওঃ বজলুর রশিদ এমপি, সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যাডঃ শামছুল হক টুকু, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক অ্যাডঃ মোঃ আফজাল হোসেন, বরিশাল বিভাগীয় পুলিশের ডিআইজি মোঃ সফিকুল ইসলাম প্রমুখ। মাহফিলের ২য় দিনে বক্তব্য রাখেন জমইয়াতে হিযবুল্লাহর সিনিয়র নায়েবে আমীর আলহাজ্ব মাওঃ শাহ্ আবু নছর নেছারুদ্দিন আহমদ হুসাইন, জমিয়াতুল মোদার্রেছীনের সভাপতি ও দৈনিক ইনকিলাব সম্পাদক এম এম বাহাউদ্দিন, আরবী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যালেন্সর ড. মোহাম্মদ আসাদুল্লাহ, বরিশাল জেলা সিনিয়র দায়রা জজ মোঃ আনওয়ারুল হক, জমিয়াতুল মোদার্রেছীনের মহাসচিব অধ্যক্ষ মাওঃ সাবি্বর আহমদ মোমতাজী, ছারছীনা দারুচ্ছুন্নাত জামেয়া-এ-ইসলামিয়ার উপাধ্যক্ষ ও তালীম তরিকত সম্পাদক মাওঃ রুহুল আমিন ছালেহী প্রমুখ। এছাড়া প্রথম দিনে ইসলামের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে বক্তব্য রাখেন জমইয়াতে হিযবুল্লাহর কেন্দ্রীয় সাহিত্য ও গবেষণা সম্পাদক ড. মুফতি কাফিলুদ্দিন সরকার সালেহী, যুব হিযবুল্লাহর কেন্দ্রীয় সভাপতি মাওঃ কাজী মফিজ উদ্দিন, মহাসচিব মাওঃ মোঃ রুহুল আমিন আফছারী, সাহিত্য ও গবেষণা সম্পাদক মুফতি ওচমান গণি, প্রচার সম্পাদক মাওঃ বদরুজ্জামান রিয়াদ, মাওঃ মোঃ শামছুল আলম মোহেব্বী প্রমুখ। জাতীয় সংসদের চীফ হুইফ আসম পিরোজতাঁর বক্তব্যে বলেন, আজকে দেশের মুসলমানের অবস্থা খুব খারাপ যাচ্ছে। ঘরে ঘরে ভাই- ভাইয়ে দন্ধ। ধর্মের নাম দিয়ে দন্ধ । যারা এ রকম করে তারা ইসলামের শুত্রু। ছারছীনার যারা মুরিদ তাদের মধ্যে জঙ্গি সংশিল্ট নেই। যারা ইসলামকে প্রছন্দ করে তারাই ছারছীনা আসেন। ছারছীনা দরবার এক আমলী পরিবেশের দরবার। যুগ যুগ ধরে এ দরবার মানুষকে ইসলামের সঠিক পথ দেখিয়ে চলছে। তিনি আরো বলেন, যারা ইসলামের বিরুদ্ধে অপব্যাখ্যা দেয় এবং জঙ্গিবাদি তৎপরতা চালায় তাদেরকে এ দেশ থেকে উৎখাত করা হবে। কেননা এটা পীর আওলিয়ার দেশ। এ দেশে সঠিক ইসলাম থাকবে। জঙ্গিবাদী ইসলাম নয়।
সুতরাং বাতেলদের এ দেশে ঠাই নাই।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মতামত লিখুন
আপনার নামটি লিখুন