পৌর মেয়র সু-দৃষ্টি কামনা হাজীগঞ্জে কালবৈশাখী ঝড়ে মসজিদ ধ্বংসস্তুফে পরিনত

হাজীগঞ্জ পৌরসভাধীন ৯নং ওয়ার্ড পশ্চিম কংগাইশ বাইতুল নূর জামে মসজিদ কালবৈশাখী ঝড়ে ধ্বংসস্তুফে পরিনত। ইনসেটে ঘরহীন মসজিদের ভিটে।

মোহাম্মদ হাবীব উল্যাহ্
কালবৈশাখী ঝড়ে হাজীগঞ্জ পৌরসভাধীন ৯নং ওয়ার্ড পশ্চিম কংগাইশ এলাকার একমাত্র জামে মসজিদটি ধ্বংসস্তুফে পরিনত হয়েছে। গত ৩০ মার্চ শুক্রবার বিকেলে আকস্মিক কালবৈশাখী ঝড়ে পশ্চিম কংগাইশ বাইতুল নূর জামে মসজিদ ধ্বংসস্তুফে পরিনত হয়। এ সময় মসজিদের ভিতরে থাকা খতিব ও ইমাম মোহাম্মদ নূরে আলম (৬৫) গুরুতর আহত হয়ে চিকিৎসা নিয়েছেন।
এ দিকে পশ্চিম কংগাইশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সম্মূখে অবস্থিত কালবৈশাখী ঝড়ে বাইতুল নূর জামে মসজিদ ধ্বংসস্তুফে পরিনত হওয়ায়্ এবং ওই এলাকায় অন্য কোন মসজিদ না থাকায় বিপাকে পড়েছেন স্থানীয় ও এলাকার ধর্মপ্রান মুসুল্লীরা। তারা চিন্তিত কবে নাগাদ মসজিদটি পূর্বের অবস্থায় ফিরে পাবে। গত শনিবার স্থানীয় পৌর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আজাদ হোসেন মজুমদার ধ্বংসস্তুফে পরিনত হওয়া মসজিদটি পরিদর্শন করেছেন।
এ বিষয়ে পৌর মেয়র আ.স.ম মাহবুব-উল আল লিপনের সু-দৃষ্টি কামনা করে স্থানীয় মুসুল্লী ও এলাকাবাসী মো. আব্দুস সাত্তার (৫৫), মো. আবুল হোসেন (৫০), মো. আবুল কালাম (৫৫), মো. জিতু মিয়া (৫২) ও মো. শাহজাহান (৪৫) বলেন, মেয়র সাব (সাহেব) অনেক অসম্ভব কাজকে সম্ভব করেছেন। আশা করি, তিনি আমাদের এই মসজিদটিও করে দিবেন।
মসজিদের সভাপতি মো. মুরাদ হোসেন স্বপন ও মোতওয়াল্লী মো. জামাল হোসেন জানান, শুক্রবারের কালবৈশাখী ঝড়ে মসজিদটি সম্পূর্ণ ধ্বংসস্তুফে পরিনত হওয়ায় খোলা আকাশের নিচে নামাজ পড়ছেন মুসুল্লীরা। মসজিদটি পূণরায় নির্মাণে সহযোগিতা চেয়ে আমরা স্থানীয় কাউন্সিলর আজাদ মজুমদারের মাধ্যমে পৌরসভায় আবেদন করবো। আশা করি পৌর মেয়র আ.স.ম মাহবুব-উল আলম লিপন আমাদের মসজিদটি নির্মাণ করে দিয়ে এলাকার মুসুল্লীদের নামাজ পড়ার সু-ব্যবস্থা করে দিবেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মতামত লিখুন
আপনার নামটি লিখুন