অসহায়দের পাশে ‘ফরাক্কাবাদ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্ররা’

নিজস্ব প্রতিবেদক: সারাবিশ্বের ন্যায় বাংলাদেশেও করোনা ভাইরাসের ভয়াল থাবা পড়েছে। এ নাজুক পরিস্থিতিতে কর্মহীন হয়ে পড়েছে দেশের সিংহভাগ মানুষ। অসহায়, দিন-মজুর, মধ্যবিত্ত ও নিন্ম মধ্যবিত্ত মানুষের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করলেন চাঁদপুরের ঐতিহ্যবাহী ফরক্কাবাদ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্রদের সংগঠন FSWA

কষ্টের দিন কাটছে এবং সংসার চালাতে হিমশিম খাচ্ছে এমন ৪৬২টি পরিবারকে তিন লাখেরও বেশি টাকার খাদ্য সামগ্রী ও নগদ এক লক্ষ টাকা অর্থ সহায়তা ঘরে ঘরে পৌঁছে দিলেন মানব প্রেমী সাবেক শিক্ষার্থীরা।

তাদের এ উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন অনেকেই। এটি একটি মহৎ উদ্যোগ বলে মন্তব্য করেছেন চাঁদপুরবাসী।

জানা গেছে, চাঁদপুরের ফরক্কাবাদ উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থীরা তাদের সংগঠনের নাম দিয়েছে ফরক্কাবাদ স্টুডেন্ট ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন (FSWA) । ওই সংগঠনের সদস্যরা সদর উপজেলার বালিয়া ইউনিয়নের মোট ৪৬২টি পরিবারকে সাহায্য সহযোগীতা করেন। এর মধ্যে প্রত্যেক পরিবারকে এক হাজার টাকা করে ১০০টি পরিবারকে নগদ অর্থ প্রদান ও ৩৬২ টি পরিবারের ঘরে ঘরে গিয়ে অর্ধ মাসের খাবার সামগ্রী বিতরণ করেন। খাদ্য সামগ্রীর মধ্যে রয়েছে চাল, ডাল, তেল, আলু, পেঁয়াজ, লবন, সেমাই, চিনি, গুড়ো দুধ, ছোলা,খেজুর ইত্যাদি।

গত ২৫শে এপ্রিল পহেলা রমজান FSWA মাধ্যমে বালিয়া ইউনিয়নের অর্থসংকটে আছেন এমন একশো টি পরিবার চিহ্নিত করে নগদ এক হাজার টাকা করে আর্থিক সহায়তা ঘরে ঘরে পৌঁছে দেন।


এরই ধারাবাহিকতায় ২৭ এপ্রিল তৃতীয় রমজানে ৮৬টি পরিবারকে খাদ্য সামগ্রী প্রদান করেন। এই কার্যক্রমকে অব্যাহত রেখে ৯ই মে পনেরোই রমজান আরো ৮৬টি পরিবারের কাছে খাদ্যসহায়তা ঘরে ঘরে পৌঁছে দেন।
এরপর গত ১৬ই মে বাইশে রমজান বালিয়া ইউনিয়নের বিভিন্ন মসজিদ এর খাদেম, ইমাম, মুয়াজ্জিনদের মোট ৪০ টি পরিবারের মাঝে পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়।

সংগঠনটির এই মানবিক কার্যক্রম অব্যাহত রেখে আজ ২২শে মে, আটাশ রমজান আসন্ন ঈদ-উল ফিতর উপলক্ষে ১৫০টি পরিবারের মাঝে ঈদ উপহার সামগ্রী, খাদ্য সহায়তা প্রদান করা হয়।

(FSWA) সংগঠনের সদস্যরা জানান ফরক্কাবাদ উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থীরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফেসবুকের গ্রুপ ও মেসেঞ্জার গ্রুপের এড হয়ে একসাথে সমন্বিত সমন্বয় করে সংগঠনটি কার্যক্রম পরিচালনা করেন। এছাড়াও অনলাইনেই সাবেক শিক্ষার্থীদের প্রত্যেক ব্যাচের উপস্থিতিতে আর্থিক অংশগ্রহণের ভিত্তিতে সংগঠনের অর্থের যোগান দেন। তারা এই ক্ষুদ্র সহায়তাকে সাহায্য না বলে উপহার হিসেবে দেখার জন্য অনুরোধ জানান।


এসময় বিত্তবানদের প্রতি আহবান জানিয়ে ওই স্বেচ্ছাসেবীরা বলেন, আপনারাও প্রতিবেশী ও অসহায় মানুষের সহযোগিতায় হাত বাড়িয়ে দিন। দানে কখনো ধন কমে না। সৃষ্টিকর্তা বরকত বাড়িয়ে দেন। জয় হোক মানবতার। জয় হোক মানুষের পাশে মানুষের সহযোগিতার।