আজকের শিশুরাই আগামীর বাংলাদেশ

ডেস্ক রিপোর্ট: সামাজিক সংগঠন “ব্রাইটার” আয়োজিত শিক্ষার্থীদের ঝরে পড়া রোধ ও মান উন্নয়নে আলোচনা ও শিক্ষা উপকরণ বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় ভূমি সচিব মাকসুদুর রহমান পাটোয়ারী।

চাঁদপুর জেলার ফরিদগঞ্জ উপজেলার বলিয়ারপুর গ্রামে “সুন্দর রাখুন সুন্দর থাকুন” এই শ্লোগানে গঠিত সামাজিক সংগঠন “ব্রাইটার” এর উদ্যোগে গ্রামীণ পরিবেশে বেড়ে ওঠা শিক্ষার্থীদের ঝরে পড়া রোধ ও মানোন্নয়নের লক্ষ্যে অভিভাবকদের সচেতনতা মূলক আলোচনা সভা ও শিক্ষা উপকরণ বিতরণ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের ভূমি মন্ত্রণালয়ের সচিব মাসুদুর রহমান পাটোয়ারী, বিশেষ অতিথি ছিলেন ফরিদগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এবং ভারপ্রাপ্ত উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মমতা আফরিন, উপজেলা শিক্ষা অফিসার মনিরুজ্জামান খান সহ আরো গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে এ ধরনের আয়োজনের উদ্যোক্তা সংগঠন “ব্রাইটার” এর ভূয়শী প্রশংসা করে বলেন সমাজের সচেতনদের এভাবেই এগিয়ে আসতে হবে। সকল দায়ভার সরকারের উপর চাপিয়ে দিলে দেশ কখনো স্বয়ংসম্পূর্ণ হবে না। দেশকে এগিয়ে নিতে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করতে হবে। সরকার শিক্ষাক্ষেত্রে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিচ্ছে, এরপরও ঝরে পড়া শব্দটা হতাশাজনক। তবুও যেখানেই এধরনের প্রবণতা রয়েছে সেখানে এর কারণ খুঁজে বের করে কাজ করতে হবে। “ব্রাইটার” সেই কাজটা করছে, সেজন্য তাদেরকে ধন্যবাদ। আজকের এই শিশু শিক্ষার্থীরাই ভবিষ্যৎ বাংলাদেশ, এরাই আগামীর বাংলাদেশকে নেতৃত্ব দিবে, পরিচালনা করবে, তাই এদের সঠিক পরিচর্যার প্রয়োজন। পাশাপাশি দেশের ইতিহাস ওদের সামনে তুলে ধরতে হবে। উন্নত রাষ্ট্র গঠনে শিক্ষিত জাতির বিকল্প নেই। এই এলাকার শিক্ষার্থীদের টেনে তুলতে আমাদের যা করণীয় তার সবই করতে হবে এবং তা আমরা করব।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে মমতা আফরিন বলেন, সুশিক্ষায় শিক্ষিত করতে সরকারের পক্ষ থেকে সব ধরনের আয়োজন রয়েছে, কিন্তু সার্বক্ষণিক আপনার শিশুর প্রতি খেয়াল রাখা, কোথায় যায়, কার সাথে মিশে, সে খবর রাখার দায়িত্ব অভিভাবকদের। তাই সবসময় আপনার শিশুর প্রতি খেয়াল রাখবেন আপনারা একটু সচেতন হলে এবং তাদের প্রতি ভালো ভাবে খেয়াল রাখলে আশা করি এই খেয়াল রাখা ঝরে পড়া রোধে প্রভাব ফেলবে।

উপজেলা শিক্ষা অফিসার তার বক্তব্যে বলেন, আপনারা আপনাদের সন্তানদের সাথে বন্ধুর মতো করে মিসত হবে, পড়ার টেবিলে সে কি করে খোঁজ নেন, ক্লাসে সে কি করে কতটা সময় দেয় সেসব খোঁজ খবর রাখেন, আর সর্বোপরি এই প্রোগ্রামের আয়োজকদের সংস্পর্শে থাকেন, তাদের পরামর্শ নেন, তাহলে শিক্ষিত হওয়ার পাশাপাশি আপনার সন্তান সুসন্তান হয়ে উঠবে।

অনুষ্ঠানের সভাপতি, বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলামের বক্তব্যের মাধ্যমে অনুষ্ঠান সমাপ্ত হয়। সামাজিক সংগঠন “ব্রাইটার” এর এই ব্যতিক্রমী কার্যক্রম এলাকায় ব্যাপক প্রশংসিত ও আলোচিত হয়েছে। এলাকার সচেতন মহল আগামী দিনে এ সংগঠনের পাশে থাকার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন। উপস্থিত সকলেই সংগঠনের সাফল্য কামনা করেছেন। সংগঠনের উদ্যোক্তা ফিরোজ আলম বলেন এটাই আমাদের সার্থকতা। একটি সুন্দর আলোকিত সমাজ গঠনে আগামীতে সংগঠনের ব্যাপক পরিকল্পনা রয়েছে বলে তিনি জানান।

অনুষ্ঠানের শুরুতে উদ্যোক্তাদের পক্ষে শাকিল, ইমরান, জসিম উদ্দিন খান ও জাকির হোসেন সংগঠনের কর্মসূচি ও কর্মপদ্ধতি তুলে ধরেন এসময় তারা বলেন পারিবারিক ও সামাজিক শিক্ষা এবং সচেতনতার অভাবে এই এলাকায় প্রাথমিক শিক্ষা শেষ করার পর শিক্ষার্থীদের ঝরে পড়ার সংখ্যা খুবই উদ্বেগজনক। উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে পারিবারিক উদাসীনতা, অসচেতনতা, অদূরদর্শিতার পাশাপাশি সামাজিক সচেতনতার অভাব রয়েছে। আর এই সামাজিক সচেতনতা তৈরিতে কাজ করছে ব্রাইটার। সমাজের সচেতন মহল যদি এই যুবসমাজকে একটু সাহস যোগায় তাহলে আগামী দিনে এর সুফল পাওয়া যাবে বলে আমরা বিশ্বাস করি। এসময় উদ্যোক্তারা এই এলাকায় একটি স্থায়ী শিক্ষা কেন্দ্র (পাঠাগার) নির্মাণের দাবি জানান।

এসময় অনুষ্ঠানে উপস্থিত সকলকেসহ সংগঠনের সকল স্বেচ্ছাসেবীদের সংগঠনের পক্ষ থেকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান সংগঠনের উদ্যোক্তা মিয়া মামুন, প্রবীর দেব অপু, ইউনুস নাজিম নুর, মামুন মজুমদারসহ সংগঠনের অন্যান্যরা।