এবারের শৈত্যপ্রবাহে তাপমাত্রা নামতে পারে ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে

বার্তাকক্ষ নিউজঃ
আসার সাথে সাথেই কমছে দিন ও রাতের তাপমাত্রার পার্থক্য। ফলে দিনের তুলনায় রাতে শীত অনুভূত হচ্ছে বেশি। তবে এখনও ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে নামেনি কোনও এলাকার তাপমাত্রা। আজ ১৭ ডিসেম্বর বা আগামিকাল ১৮ ডিসেম্বর দেশের উত্তরাঞ্চল ও পশ্চিমাঞ্চলে জেঁকে বসতে পারে শীত। বইতে পারে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের শৈত্যপ্রবাহ। তাপমাত্রা নেমে যেতে পারে ১০-এর নিচে। আবহাওয়া অধিদফতরের পূর্বাভাসে এমন তথ্য জানা গেছে।

আবহাওয়া অফিস সূত্রে জানা যায় ‘আগামিকাল অথবা পরশু তাপমাত্রা বেশ কিছুটা কমে যাবে। এতে দেশের একটি বড় অংশে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে। তবে তীব্র কিছু হবে না। ‘শৈত্যপ্রবাহ মূলত হবে রাজশাহী, রংপুর ও খুলনায়। এর বাইরের অঞ্চলগুলোতেও তাপমাত্রা কিছুটা কমবে।’

মৌসুমি লঘুচাপ দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে। উপমহাদেশীয় উচ্চচাপ বলয়ের বর্ধিতাংশ বিহার ও এর আশেপাশের এলাকা পর্যন্ত অবস্থান করছে। এর প্রভাবে অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলাসহ আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে। সকাল থেকে শেষ রাত পর্যন্ত সারাদেশে হালকা থেকে মাঝারি ধরনের কুয়াশা পড়তে পারে।

আজ দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রংপুর বিভাগের তেঁতুলিয়ায় ১০ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা গতকাল ছিল ১২ দশমিক ৫। এ হিসাবে দুই ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা কমেছে। এদিকে ঢাকার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা গতকাল ১৭ দশমিক ৫, আজ তা কমে ১৬ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস হয়েছে।

একইভাবে ময়মনসিংহে গতকাল ছিল ১৪ দশমিক ৪, আজ তা কমে হয়েছে ১৪ দশমিক ২; চট্টগ্রামে ছিল ১৮ দশমিক ৫, আজ ১৭ দশমিক ৫; সিলেটে ছিল ১৬ দশমিক ২,আজ কমে ১৬; রাজশাহীতে ছিল ১৬, আজ ১৩ দশমিক ৪; রংপুরে ছিল ১২, আজ ১৪ দশমিক ২; খুলনায় ছিল ১৭ দশমিক ৫,আজ ১৬ এবং বরিশালে সবচেয়ে বেশি কমেছে। সেখানে ছিল ১৫ দশমিক ৫, আজ ৩ ডিগ্রি কমে ১৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে।

এদিকে আবহাওয়াবিদ ওমর ফারুক বলেন, ‘এখন দিনের ও রাতের তাপমাত্রার পার্থক্য কমে এসেছে। এ কারণে তাপমাত্রা খুব না কমলেও শীত বেশি অনুভূত হচ্ছে।’