কওমি মাদ্রাসা আছে বলেই আমরা ইসলাম ধর্মের সঠিক বিষয়াবলী জানতে পারছি : ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

ডেস্ক রিপোর্ট : সিলেটের প্রাচীনতম ঐতিহ্যবাহী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান জামেয়া তাওয়াক্কুলিয়া রেঙ্গার শতবার্ষিকী ও দস্তারবন্দী মহাসেম্মলনের দ্বিতীয় দিন বৃহস্পতিবার সকাল নয়টা থেকে উল্লামা সম্মেলনের মধ্য দিয়ে শুরু হয়। মহাসেম্মলনে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী জামেয়া তাওয়াক্কুলিয়া রেঙ্গার প্রশংসা করে বলেন, ‘বাংলাদেশে জামেয়া রেঙ্গাসহ কওমি মাদ্রাসা আছে বলেই আমরা ইসলাম ধর্মের সঠিক বিষয়াবলী জানতে পারছি। এজন্য আমাদের সরকার কওমি মাদ্রাসাগুলোকে স্বীকৃতি দিয়েছে। কারণ, ইসলামি শিক্ষা না থাকলে আমাদের অস্তিত্বই থাকবে না। ইনশাআল্লাহ যথাসময়ে আমাদের সরকার কওমি মাদ্রাসাগুলোকে আরও মূল্যায়ন করবে।

অনেকেই কওমি সনদের বিরোধীতা করেছিল জানিয়ে শেখ আবদুল্লাহ বলেন, কওমি সনদের স্বীকৃতি দেয়ার ক্ষেত্রে অনেকেই বিরোধিতা করেছেন। এমনকি আমাদের দল ও জোটের অনেকেও বিরোধিতা করেছিল। কিন্তু মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ছিলেন তার কথায় অটল অবিচল। স্বীকৃতি দেয়ার ক্ষেত্রে কোনো বাধা শেখ হাসিনাকে টলাতে পারেনি।

শতবর্ষী এই জামেয়ায় আজ সম্মেলনের ২য় দিন ছিল ধর্মপ্রাণ মানুষের উপচে পড়া ভীড়। শীতের রাতেও বিশাল শামিয়ানা মুসল্লি পূর্ণ ছিল।

চার অধিবেশনে অনুষ্ঠিত মহাসেম্মলনের দ্বিতীয় দিনে সভাপতিত্ব করেন মাওলানা শামসুল ইসলাম খলিল, মাওলানা শায়খ জিয়া উদ্দীন, মাওলানা মুহাম্মদ বিন ইদ্রিস লক্ষীপুরী, মাওলানা শেখ আহমদ, মুফতি ওলিউর রহমান, আল্লামা নযীর আহমদ ঝিঙ্গাবাড়ী, মাওলানা গোলাম মোস্তফা, মাওলানা শফিকুল হক, মাওলানা শফিকুল আহাদ দিরাই, মাওলানা এজাজ আহমদ