কচুয়ার জগৎপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগ বাতিলের দাবিতে প্রতিবাদ ও মৌন মিছিল

কচুয়া প্রতিনিধি : চাঁদপুরের কচুয়া উপজেলার ঐতিহ্যবাহী জগৎপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগ বাতিলের দাবিতে প্রতিবাদ মৌন মিছিল ও মানববন্ধন করছে এলাকাবাসী। মঙ্গলবার বিকালে জগৎপুর বাজারে ওই বিদ্যালয়ের অভিভাবক ও এলকাবাসীর ব্যানারে আয়োজিত মানবন্ধনে এলাকার কয়েক শতাধিক লোকজন অভিভাবক ও বিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহন করেন।
জানাগেছে, কচুয়া উপজেলার ঐতিহ্যবাহী জগৎপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক পদশুন্য হওয়ায় বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সম্প্রতি জাতীয় ও স্থানীয় পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করলে ১২ জন প্রার্থী এ পদে আবেদন করেন। পরবর্তীতে গত ৬ আগষ্ট কচুয়া উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে নিয়োগ পরীক্ষায় ৯ জন প্রার্থী লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষায় অংশগ্রহন করেন।

স্থানীয় মানববন্ধনকারীদের অভিযোগ, নিয়োগ বোর্ড যোগ্যদের মূল্যালয় না করে, অদক্ষ, অযোগ্য, দূর্বল সার্টিফিকেটের অধিকারী প্রার্থী ওই বিদ্যালয়ের বর্তমান সহকারী প্রধান শিক্ষক মো. আমিন হোসেন কে নিয়োগ পরীক্ষায় ৭নং স্থানে উত্তীর্ন হওয়া প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগ দেয়ার পায়তানা করছেন তারা দাবী করেন। তারা আরো জানান, অযোগ্য প্রার্থী মো. আমিন হোসেনকে বাদ দিয়ে বিদ্যালয়ের শিক্ষার পরিবেশ বজায় রাখার স্বার্থে অভিলম্বে নতুন করে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রদানের মাধ্যমে একজন ন্যায় নিষ্ঠাবান ব্যাক্তিকে এ পদে নিয়োগ দেয়ার জন্য অনুরোধ জানান তারা।

মানবন্ধনে অন্যান্যদের মধ্যে অংশগ্রহন করেন, ১২নং আশরাফপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক রেজাউল মাওলা হেলাল মুন্সী,যুগ্ম সাধারন সম্পাদক মো. মাহবুবুর রহমান মামুন, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. আবু ইউসুফ, প্রচার সম্পাদক মো.ইব্রাহীম খলিল, ওর্য়াড আওয়ামীলীগের সভাপতি আবু তাহের মুন্সী, ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারন সম্পাদক মো. শিপন মিয়া, ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক কার্তিক চন্দ্র রায়সহ এলাকার শত শত লোকজন।

এ ব্যাপারে বিদ্যালয়ের বর্তমান সহকারী প্রধান শিক্ষক ও নিয়োগ পরীক্ষায় প্রধান শিক্ষক পদে অংশগ্রহনকারী মো. আমিন হোসেন জানান, প্রাথমিক ভাবে আমি নিয়োগ পরীক্ষায় প্রথম হয়েছি। কিন্তু এলাকার কিছু লোকজন রাজনৈতিক দ্বদ্ধের কারনে সুবিধা না পেয়ে আন্দোলনের নামে বিশৃংখলা করছেন। অপর দিকে কচুয়া উপজেলা মাধ্যমিক অফিসার মো. সাইদুর রহমানের বক্তব্য জানতে বার বার চেষ্টা করে ও তিনি মোবাইল না ধরায় তাঁর বক্তব্য নেয়া যায়নি।