কিশোরগঞ্জে করোনার ভয়াল থাবায়: আক্রান্ত বেড়ে ৩১৭, মৃত্যু বেড়ে ৯

মোবারক হোসেন, কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি: কিশোরগঞ্জে আবারো করোনা ভয়াবহ রূপ ধারণ করছে। সারাদেশের সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়তে শুরু করেছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। সেই সাথে বাড়ছে মৃত্যু। প্রথমে এই জেলা কে হটস্পট হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছিল। বেশ কিছুদিন থমকে থাকলেও নতুন করে আবারো বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। ২৯ মে শুক্রবার হঠাৎ নতুন করে আরো ১৭ জন সনাক্ত হয়েছে। এতে এই জেলায় মোট আক্রান্ত বেড়ে ৩১৭ জনে দাঁড়িয়েছে। এছাড়াও নতুন ১ জন মৃত ব্যক্তি সহ জেলায় মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৯ জনে।গত ২৩ মে জেলা থেকে সর্বমোট ২২৪ টি নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকায় পাঠানো হয় পরীক্ষার জন্য। সেই রিপোর্ট অনুযায়ী নতুন করে আরো ১৭ জনের শরীরে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া গেছে। শুক্রবার দুপুরে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন কিশোরগঞ্জের সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ মুজিবুর রহমান।


নতুন ১৭ জনের মধ্যে রয়েছে জেলার ভৈরবে ১০ জন, কিশোরগঞ্জ সদরে ১ জন, করিমগঞ্জে ১ জন, তাড়াইলে ১ জন, পাকুন্দিয়া ১ জন, কটিয়াদী ১ জন, কুলিয়ারচর ১ জন ও বাজিতপুরে ১ জন।


ইতিমধ্যে কিশোরগঞ্জ জেলায় নতুন ১ জন মৃত ব্যক্তি সহ ৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। দুই জন করোনা সনাক্ত হওয়ার পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়।আর বাকি ৭ জন করোনা ভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে মৃত্যুবরণ করার পর তাদের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার রিপোর্টে পজেটিভ পাওয়া যায়।মৃত ব্যক্তিদের মধ্যে রয়েছে জেলার করিমগঞ্জে ২ জন, কিশোরগঞ্জ সদরে ১ জন, হোসেন পুরে ১ জন, কটিয়াদী ১ জন,কুলিয়ারচরে ১ জন, ভৈরবে ১ জন, বাজিতপুরে ১ জন ও মিঠামইনে ১ জন।
কিশোরগঞ্জ জেলা থেকে এই পর্যন্ত সর্বমোট ৪৯১০ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে ৩১৭ জনের শরীরে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া গেছে। এরমধ্যে চিকিৎসা শেষে ১৯২ জন সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন।কিশোরগঞ্জ সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, নতুন আরো ১৭ জন সহ মোট আক্রান্ত বেড়ে ৩১৭ জনে দাঁড়িয়েছে। এতে রয়েছে জেলার কিশোরগঞ্জ সদরে ৩৪ জন, হোসেন পুরে ৯ জন, করিমগঞ্জে ২৫ জন, তাড়াইলে ৩৬ জন, পাকুন্দিয়া ১৬ জন, কটিয়াদী ১৮ জন,কুলিয়ারচরে ১২ জন, নিকলীতে ৫ জন, বাজিতপুরে ২২ জন, ইটনায় ১২ জন, মিঠামইনে ২৫ জন, অষ্টগ্রামে ৩ জন ও ভৈরবে ১০০ জন।