চরম করোনা আতঙ্কেও হিলি ইমিগ্রেশন পথে পাসপোর্টযাত্রী পারাপার!

হাকিমপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি : বিশ্বব্যাপী করোনা আতঙ্কে স্থবির জনজীবন। করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সরকার বিভিন্ন নির্দেশনা জারি করেছে। জণসমাগম এরিয়ে অতিব জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কাউকে বাড়ির বাহিরে বের না হওয়ার নির্দেশও দেয়া হয়।

কিন্তু উদ্বেক জনক এই পরিস্থিতিতেও বাংলাদেশে আটকে পরা পাসপোর্টধারীদের ভারত নিজ দেশে ফেরা বন্ধ করে দিলেও হিলি ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট পথে ভারতে আটকে পরা বাংলাদেশী পাসপোর্টধারী যাত্রী আসা চলমান রয়েছে।
বৃহস্পতিবার দিনাজপুরের হিলি ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট পথে ভারত থেকে বাংলাদেশী ৭জন পাসপোর্টধারী যাত্রী দেশে প্রবেশ করেছে। তারা করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত কি না এমন সন্দেহে তাদেরকে কোয়ারেন্টাইনে ভর্তি করা হয়েছে।

উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে খোলা কোয়ারেন্টাইনে তাদেরকে ভর্তি করা হয়। উপজেলা স্বাস্থ্য পরিবার ও পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মো. নাজমুস সাইদ জানান, তাঁরা অসুস্থ না হলেও করোনা ভাইরাস আক্রান্ত সন্দেহে উপজেলা প্রশাসনের সিদ্ধান্ত মোতাবেক তাদেরকে কোয়ারেন্টাইনে ভর্তি করা হয়েছে।

করোনা ভাইরাস সংক্রমনরোধে এই পথে যাত্রী পারাপার বন্ধ হবে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে, হিলি ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট ওসি মো. সেকেন্দার আলী জানান, সরকারের কোন নির্দেশনা না আসায় আমরা চলমান রেখেছি। হিলি ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট পথে পাসপোর্ট যাত্রী পারাপার ও বুধবার স্থলবন্দরে ৫৯টি ভারতীয় পণ্যবাহী ট্রাক প্রবেশে করোনা ঝুঁকি আরো বারিয়ে দিয়েছে কি না এমন প্রশ্নের জাবাবে হাকিমপুর (হিলি) পৌর মেয়র জামিল হোসেন চলন্ত বলেন, হ্যাঁ অবশ্যই, হিলির স্বার্থে এখনই সব কিছু লকডাউন করে দেয়া উচিত।

এব্যাপারে ইউএনও মো. আব্দুর রাফিউল আলমের নিকট জানতে চাইলে, তিনি ৭ জনকে কোয়ারেন্টাইনে রাখার সত্যতা নিশ্চিত করেন। পরিশেষে করোনা সংক্রান্ত সৃস্ট উদ্বেকজনক পরিস্থিতিতে যাত্রী পারাপার বন্ধ করে দেয়ার পরিস্থিতি সৃস্টি হয়েছে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে, দিনাজপুর জেলা সিভিল সার্জন ডা. মো. আব্দুল কুদ্দুস মিয়া জনান, এখনই টোটালি বন্ধ করা দেয়া উচিত, আমরা এ বার্ডেন তো সহ্য করতে পারছিনা ।

তিনি আরও বলেন এরাই সংক্রমন বিস্তারের জন্য মেইন সোর্স বলেও উল্লেখ করেন।