তাড়াইলে পুকুরে বিষাক্ত ট্যাবলেট প্রয়োগ করে ২৫ লাখ টাকার মাছ মেরে ফেলা হয়েছে

রুহুল আমিন, তাড়াইল (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ

কিশোরগঞ্জের তাড়াইল উপজেলার রাউতি ইউনিয়নের মৌগাঁও গ্রামের বাসিন্দা আবদুল মান্নান ও তার তিন ভাইয়ের প্রায় ৮০ শতাংশ যৌথ পুকুরটিতে কে বা কারা বিষাক্ত ট্যাবলেট প্রয়োগ করে ২৫ লাখ টাকার কৈ মাছ মেরে ফেলেছে।

জানা যায়, ২৪ মে রোববার রাতে উপজেলার রাউতি ইউনিয়নের মৌগাঁও গ্রামের চার ভাইয়ের ৮০ শতাংশ যৌথ পুকুরটিতে রাতের কোনো একটি অংশে কে বা কারা বিষাক্ত ট্যাবলেট প্রয়োগ করে ৫ থেকে ৬শ’ মণ কৈ মাছ মেরে ফেলেছে। যার বাজার মূল্য প্রায় ২৫ লাখ টাকা।
প্রায় আট কাটা যৌথ পুকুরটির মালিকদের নাম হল, আবদুল মান্নান, আবদুল হান্নান, আজিজুল হক ও মোজাম্মেল।

পুকুরের মালিকদের সাথে কথা হলে তারা বলেন, ২৪ মে রোববার রাত ১০ টার দিকে পুকুরে মাছের খাদ্য দিয়ে যাই। ভোরে এসে দেখি পুকুরের সব মাছ মরে ভেসে উঠছে। তৎক্ষনাৎ ডাক্তার এনে পরীক্ষা করালে তিনি বলেন, পুকুরে বিষাক্ত ট্যাবলেট প্রয়োগ করা হয়েছে। আর তা থেকেই সব মাছ মরে ভেসে উঠছে। তারা আরো বলেন, আমরা এখন নিঃস্ব। পথে বসা ছাড়া আমাদের সামনে আর কোনো উপায় দেখছি না। প্রশাসনের কাছে এর সুষ্ঠ তদন্ত করে দোষীদের আইনের আওতায় আনা হউক।

বাংলাদেশ আ’লীগ কিশোরগঞ্জ জেলার তাড়াইল উপজেলার শাখার রাউতি ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আফজাল হোসেন আজম বলেন, করোনা ভাইরাস (কোভিট-১৯) এর কারণে মানুষের অর্থনৈতিক অবস্থা শূন্যের কোঠায়। অন্যদিকে পবিত্র ঈদুল ফিতরের রাতে এমন একটি ন্যাক্কারজনক কাজ মানুষ কিভাবে করতে পারলো? আমি কিশোরগঞ্জ-০৩ (তাড়াইল-করিমগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য এ্যাডভোকেট মুজিবুল হক চুন্নু মহোদয়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। পাশাপাশি প্রশাসনের কাছে বিনীত অনুরোধ করছি যে, বিষয়টি যেন সুষ্ঠ তদন্ত করে দোষীদের আইনের আওতায় আনা হয় এবং ভোক্তভীগেদের প্রতি সরকারের সু-দৃষ্টি কামনা করছি।