নরসিংদীতে মসজিদে মসজিদে ঈদের জামাত

লক্ষণ বর্মন, নরসিংদী প্রতিনিধি: করোনার প্রাদুর্ভাব রোধে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী ঈদের জামাত ঈদগাহ বা খোলা মাঠে জনসমুদ্র করে আদায় করা যাবে না। তবে ঈদ জামাতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।নির্দেশনায় বলা হয়েছে- মাস্ক পরে, বাসা বা বাড়ি থেকে ওজু করে, সামাজিক দূরত্ব মেনে, মসজিদের মেঝে জীবানুমুক্ত ও পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করে এবং প্রয়োজনে ব্যক্তিগত জায়নামাজ ব্যবহার করে এবার নিজ এলাকার মসজিদে ঈদের নামাজ আদায় করতে হবে।

মুসল্লির অনুপাতে মসজিদগুলোতে কয়েক ধাপে জামাতের আয়োজন করার নির্দেশনাও দিয়েছে। ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে এবার নামাজের আগে-পরে কোলাকুলি ও হাত না মেলাতে বলা হয়েছে। এছাড়াও যারা অসুস্থ, চিকিৎসাধীন এবং রোগীর সেবার নিয়োজিত বৃহত্তর স্বার্থে তাদের মসজিদে যেতেও বারণ করা হয়েছে।

ধর্ম মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী এবার নরসিংদীতে মসজিদে মসজিদে ঈদের নামাজের জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার (২৫ মে) সকালে গাবতলি জামেয়া কাসেমিয়া মসজিদের ভিতরে শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে খুতবা পাঠ মোনাজাতের মধ্যে দিয়ে শেষ হয় প্রথম ও দ্বিতীয় দফার ঈদ উল-ফিতরের নামাজ। জামায়াতের নামাজ পরিচালনা ও বয়ান করেন গাবতলী জামিয়া কাসেমিয়া মাদ্রাসার মহা-পরিচালক সৈয়দ কামাল উদ্দীন আবদুল্লাহ জাফরী।

প্রথম জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে সকাল সাড়ে ৮টায়।পরে দ্বিতীয় জামাত অনুষ্ঠিত হয় সকাল সোয় ৯টায়। প্রতি জামাতে পৃথক পৃথক ইমাম এবং মুয়াজ্জিন ছিল।তিন ফুট দূরত্ব বজায় রেখে নামাজ আদায় করা হয়েছে৷ মসজিদে কোনও কার্পেট বিছানো ছিলোনা। মুসল্লিরা ব্যক্তিগত জায়নামাজ ব্যবহার করেছেন। তবে এবার গাবতলী মসজিদে ঈদের জামাতে উপস্থিত ছিলেন না কোন মন্ত্রী, এমপি অথবা বিরোধী দলীয় কোন নেতা।

অতিরিক্ত মুসল্লির ভিড় এড়াতে নরসিংদী জেলার মসজিদগুলোতে একাধিক ঈদ জামাতের ব্যবস্থা করার নির্দেশ দিয়েছে জেলা প্রশাসক ।