ফরিদগঞ্জে মধ্যবিত্ত ও দরিদ্রদের মাঝে দিনে ও রাতের আঁধারে খাদ্য বিতরন করেন: হেলাল উদ্দিন

মোঃআল – আমিন : বিশ্ব এখন করোনা ভাইরাস দ্বারা সংক্রমিত। বিশ্ব ব্যাপী করোনা ভাইরাসের সংক্রমন বাংলাদেশেও ছড়িয়ে পড়েছে। আর তাই সরকারের সকল রাষ্ট্র যন্ত্র এক মানুষদের সচেতন করার জন্য মাঠে নেমেছেন। তখনি এ মহামারী ভাইরাস সংক্রমন মোকাবেলায় মানুষ হয়ে পড়েছে আজ অসহায়।

তাই এ ভাইরাস সংক্রমন ঠেকাতে বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মানুষদেরকে হোম (কোয়ারেন্টাইন) ঘরে থাকার আহ্বান জানান। যত দিন পর্যন্ত ভাইরাসের সংক্রমন না কাটে। আর এ করোনা ভাইরাস যেন মানুষ থেকে মানুষের মাঝে ছড়াতে না পারে এজন্য অন্যান্য জেলার ন্যায় চাঁদপুর জেলা ও লকডাউন করা হয় । আর এ লকডাইনের ফলে কর্মজীবি ও খেটে খাওয়া শ্রমজীবি মানুষ গন হয়ে পড়েছে আজ কর্মহীন। তাই কর্মহীন মানুষদের মুখে দু বেলা দু মুঠো খাবার তুলে দেয়ার জন্য সরকার তৎপর হয়ে পড়েছে। তাই মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে তার প্রতিনিধিরাও ঘরে বসে নেই। এ ভাইরাসের সংক্রমনে দিয়েও সাংসদরা ও তাদের প্রতিনিধিরা ছুটে চলেছেন পাড়া, মহল্লা, ইউনিয়ন ও পৌরসভায়।

তারই ধারাবাহিকতায় ফরিদগঞ্জ উপজেলার পৌর সংলগ্ন ১৪ নং ফরিদগঞ্জ (দঃ) ইউনিয়য়ের মোট ৯ টি সহ উত্তর পোয়া ও সাফুয়া এলাকায় চাঁদপুর-৪ ফরিদগঞ্জের (এমপি) সাংবাদিক মুহম্মদ শফিকুর রহমানের নির্দেশনায় খাজে আহম্মেদ মজুমদারের তত্বাবধানে তার পক্ষে প্রায় ৩০০ গরীব-দুঃখী পরিবারকে ঘরে ঘরে গিয়ে খাদ্য সামগ্রী বিতরন করেন। তিনি কর্মহীন, অসহায় মানুষদের ঘরে ঘরে গিয়ে খাদ্য পৌছে দেন। এ যেন এক মানবতার ফেরিওয়ালা। তিনি নিজ হাতে চাল, ডাল, আলু, পেয়াজ তেল,সাবান সহ নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী প্যাকেট করে নিজে বয়ে নিয়ে, নিজ হাত দিয়ে মানুষের ঘরে ঘরে পৌছে দেন। উপজেলা যুবলীগের সিনিয়র আহ্বায়ক হেলাল উদ্দিন আহমেদ।

তিনি তার বক্তব্যে,বলেন ফরিদগঞ্জ উপজেলার একটি মানুষও না খেয়ে থাকবে না। চাঁদপুর -০৪ ফরিদগঞ্জের এমপি মুহম্মদ শফিকুর রহমানের তত্ত্বাবধানে সরকারের সকল প্রণোদনা ও সুযোগ-সুবিধা ফরিদগঞ্জ উপজেলার জনগণকে, তাদের নিজের প্রাপ্য বুঝে দেওয়া হবে। এবং তিনি আরো বলেন আপনারা ঘরে থাকবেন। আর ঘরে থাকলেই করোনা ভাইরাস থেকে বাচতে পারবেন।