ফুটবলের নতুন মৌসুম ডিসেম্বরে

অনলাইন ডেস্ক: করোনায় পরিত্যক্ত ফুটবলের গত মৌসুম। আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয় ক্লাব ও ফুটবলাররা। তার পরও নতুন মৌসুম শুরু নিয়ে আগ্রহ দেখায় দুই পক্ষ। তবে গত মৌসুমে কিছু অমীমাংসিত ইস্যুর সমাধান না হওয়ায় আগামী মৌসুম নিয়ে কোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারছিল না পেশাদার লিগ কমিটি। ক্লাবগুলোর সঙ্গে কয়েকবার এবং ফুটবলারদের সঙ্গে দু’বার বৈঠকের পর অবশেষে সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন। গতকাল লিগ কমিটির মিটিংয়ে সিদ্ধান্ত হয় যে, ফেডারেশন কাপ দিয়ে ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে শুরু হবে ফুটবলের নতুন মৌসুম।

নতুন মৌসুম শুরু করা নিয়ে বড় বাধা ছিল খেলোয়াড়দের পারিশ্রমিক। করোনার কারণে গত মৌসুমের পুরো টাকা কোনো খেলোয়াড়ই পাননি। সেই বকেয়া পাওনা ছাড়াও ২০২০-২১ মৌসুম বাবদ অগ্রিম ৫০ শতাংশ পারিশ্রমিক চেয়েছিলেন খেলোয়াড়রা। কিন্তু ক্লাবগুলো ২০-২৫ ভাগ পারিশ্রমিক দিতে রাজি ছিল। শেষ পর্যন্ত ক্লাবগুলোর চাওয়াই পূরণ হতে চলেছে। চুক্তি আগের মতো থাকলেও ২০২০-২১ মৌসুমের জন্য খেলোয়াড়রা পারিশ্রমিক পাবেন ২৫ শতাংশ। আর নতুন মৌসুম শুরুর আগে এর ৪১-৪৫ ভাগ অর্থ পরিশোধ করবে ক্লাবগুলো। ২০১৯-২০ মৌসুমে ক্লাবগুলোর কাছ থেকে যে টাকা পাওনা ফুটবলাররা, তার পুরোটাই দেওয়া হবে। নতুন মৌসুমে কেউ ঠিকানা বদল করতে চাইলে সেটা হবে সমঝোতার মাধ্যমে।

করোনাভাইরাসে সবকিছু স্বাভাবিক হলেও মৃত্যু ও শনাক্তের হার প্রত্যাশা অনুযায়ী কমছে না। স্বাস্থ্যবিধি মেনে খেলা শুরুর চিন্তা করা বাফুফে ভেন্যু কমানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে লিগ চালাতে হলে সাতটি ভেন্যুতে খেলা আয়োজন করা সম্ভব না। সে কারণে ক্লাবগুলোর সঙ্গে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে, ঢাকার আশপাশে থাকা চারটিতে ভেন্যুতে খেলা হবে। তবে ক্লাবগুলোর চাওয়া ছিল তিনটি ভেন্যুতে খেলা। পেশাদার লিগ কমিটির আগের মিটিংয়ে অধিকাংশ ক্লাবই বিদেশি না নেওয়ার পক্ষে মত দিয়েছিল। ক্লাবগুলোর মতামত লিখিত আকারে চেয়েছিল বাফুফে। সেখানে দেখা যায়, মত পাল্টে বিদেশির পক্ষে মত দিয়েছে বেশিরভাগ ক্লাব। বৃহস্পতিবার লিগ কমিটির সিদ্ধান্তে চার বিদেশি খেলার প্রস্তাবনা পাস হয়েছে। লিগ কমিটির এসব সিদ্ধান্ত ৩ অক্টোবর বাফুফে নির্বাচনের দিন নির্বাহী কমিটিতে তোলা হবে। সেদিনই আসবে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত।