বন্যার্তদের সহায়তায় জেনেসিস ফাউন্ডেশনের ‘A Click for Life’ ফটোগ্রাফি কনটেস্টের আয়োজন

ঢাবি প্রতিনিধিঃ ‘A Click for Life’ ফটোগ্রাফি কনটেস্টের দ্বিতীয় পর্ব শুরু করেছে জেনেসিস ফাউন্ডেশন। প্রতিযোগিতায় নিবন্ধন ফি থেকে প্রাপ্ত অর্থের পুরো অংশই বন্যা দুর্গত ও করোনায় ক্ষতিগ্রস্থ মানুষের জন্য ব্যয় করা হবে।

গত রবিবার (১লা আগস্ট) থেকে শুরু হওয়া এ প্রতিযোগিতার নিবন্ধন এবং ছবি সংগ্রহ চলবে আগামী ১৫ আগস্ট, ২০২১ পর্যন্ত। প্রতিযোগিতায় নিবন্ধন ফি ধরা হয়েছে ১০০ টাকা।

ফটোগ্রাফি কনটেস্টের পুরো প্রক্রিয়াটি গুগল ফর্মের তিনটি ধাপে সম্পন্ন হবে। প্রথমে প্রতিযোগিকে রেজিস্ট্রেশন ফি প্রদানের মাধ্যমে প্রথম পর্যায় সম্পন্ন করতে হবে। দ্বিতীয় পর্যায়ে প্রতিযোগিকে তার নিজের প্রয়োজনীয় তথ্য প্রদান করতে হবে এবং সর্বশেষে প্রতিযোগিকে তার ফটোর একটি টাইটেল দিয়ে সাবমিট করতে হবে।

‘A Click for Life’ ফটোগ্রাফি কনটেস্ট সম্পর্কে জেনেসিস ফাউন্ডেশনের প্রেসিডেন্ট শামসুল আলম রিফাত বলেন, “ সম্পূর্ণ অনলাইনভিত্তিক এই প্রতিযোগিতার মাধ্যমে আমরা একদিকে তরুণ প্রজন্মের ভালো ভালো চিত্রগ্রাহকদের মেধার মূল্যায়ন করবো। একইসাথে আমরা এই ইভেন্ট থেকে প্রাপ্ত অর্থ মানবতার সেবায় ব্যয় করবো। তাই আশা করি আমাদের ডাকে সারা দিয়ে সকলে এই ইভেন্টে অংশগ্রহণ করবে।

অন্যদিকে ফাউন্ডেশনের ভাইস প্রেসিডেন্ট মোঃ রাফিজ খান বলেন, ‘A Click for Life’ আমাদের ফাউন্ডেশনের একটি ক্যালেন্ডার ইভেন্ট। গত বছর থেকে বন্যার্তদের সহয়তায় প্রতি বছরই আমরা এই ইভেন্টটি করার নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছি। তবে এই বছর করোনা মহামারি আরও তীব্র আকার ধারন করায় বন্যার পাশাপাশি করোনা ভাইরাসে ক্ষতিগ্রস্থদের বিষয়টিও আমরা ইভেন্টের ক্ষেত্রে বিবেচনা করেছি।”

জেনেসিস ফাউন্ডেশন একটি অলাভজনক ও অরাজনৈতিক স্বেচ্ছাসেবী সামাজিক সংগঠন। ২০১৮ সালের জুন মাসে ‘পৃথিবী হোক ভালোবাসাময়’ স্লোগানকে সামনে রেখে একদল তরুণ স্বেচ্ছাসেবক নিয়ে যাত্রা শুরু করেছিল এ ফাউন্ডেশনটি। প্রতিষ্ঠার পর থেকে বর্তমানে জেনেসিস ফাউন্ডেশনের প্রায় ৫০০ স্বেচ্ছাসেবী প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে দেশের ১২ টি জেলায় স্বেচ্ছাসেবী কার্যক্রম পরিচালনা করে যাচ্ছে।

বর্তমানে ফাউন্ডেশনটি নিয়মিত দেশের ১২ টি জেলায় ‘পৃথিবী প্রাণ চাই’, ‘সচেতন নাগরিক প্রকল্প’, ‘ঈদ হোক ভালোবাসাময়’, ‘বন্যার্তদের পাশে আমরা’, ‘রক্তদান হোক উপহার’, ‘ইফতার উইথ বিউটিফুল পিপল’, ‘শীত হোক উষ্ণতার’, ‘আলোকিত মানুষ’, ‘আলোকিত পৃথিবী’ নামে নানা ইভেন্ট প্রতিবছর পরিচালনা করে যাচ্ছে।