বরগুনায় কোরবানির পশুর চামড়া ধস

মোঃ আসাদুজ্জামান: বরগুনায় কোরবানির পশুর চামড়ার বাজারে ধস নেমেছে। জেলার বাজারগুলোতে গতবারের চেয়ে চার ভাগের এক ভাগ দামে চামড়া বেচতে হচ্ছে মৌসুমি ব্যবসায়ীদের। অনেক জায়গায় কম দামে বিক্রি হওয়ায় অবহেলায় মাটিতে লুটাচ্ছে চামড়া।

চামড়া বাজারে এই ধসের শিকার মধ্যস্বত্বভোগী ও মৌসুমি ব্যবসায়ীরা দিশেহারা। আর যেসব হত-দরিদ্র মানুষ কোরবানির চামড়া বিক্রির টাকা থেকে একটা অংশ পেয়ে থাকে প্রতিবছর, এবার তাদের ভাগ্যেও জুটবে না কাংখিত অর্থ।

জানা গেছে, বিগত বছরগুলোতে জেলায় বিভিন্ন বাজারে প্রতিটি ছাগলের চামড়া বিক্রি হয়েছে ২শ থেকে ৩শ টাকা। এবার তা আকারভেদে দাম ২৫ থেকে ৩০ টাকা।প্রতিটি গরু চামড়া বিক্রি হয়েছিল ১হাজার থেকে দেড় হাজার টাকায়, এবার তা ১শ থেকে ৩শ টাকায় বিক্রি হয়েছে। বরগুনা সদর উপজেলার ডলুয়া গ্রামের আনিছুর রহমান, পাথোরঘাট উপজেলার কাকচিড়া গ্রামের গোলাম রব্বানী, বেতাগী উপজেলার হোসনাবাদ গ্রামের হানিফ হোসেনসহ জেলার বিভিন্ন এলাকার কোরবানিদাতারা জানান, বিগত ১০ বছরের চামড়ার এমন মন্দা বাজার দেখেননি তারা। চামড়ার বাজার ধসের কারণে লোকসানের শিকার হলেন জেলার প্রায় সব মৌসুমি ব্যবসায়ী।

বরগুনা জেলা শহরের পশু হাসপাতাল এলাকার কফিল বিহারী,  মৌসুমি চামড়া ব্যবসায়ীরা জানান, কোরবানির চামড়ার এই আকস্মিক দরপতনে দিশেহারা মধ্যস্বত্বভোগী চামড়া ব্যবসায়ীরা। তারা প্রতি বছর কোরবানির সময় দু-এক দিনের এ ব্যবসায় টাকা খাটিয়ে ভালো লাভ করেন। তবে এবারের দরপতনে লোকসান গুনতে হচ্ছে বলে বিপাকে তারা। পুঁজি সংকট, ট্যানারি মালিকদের কাছে বকেয়া পাওনা ইত্যাদি কারণে চামড়ার দাম পড়েছে বলে মনে স্থানীয় চামড়া ব্যবসায়ীরা। বরগুনা শহরের চামড়া ব্যবসায়ী লিমা, জাহাঙ্গীর, শাহিন আকতার বলেন, ট্যানারি মালিকদের কাছে বকেয়া পাওনা রয়েছে লাখ লাখ টাকা। হাতে টাকা না থাকায় তারা কাংখিত পরিমাণে চামড়া কিনতে পারছেন না।

ফলে বাজারে চাহিদা কম থাকায় চামড়া মূল্য স্বাভাবিক কারণে কমে গেছে। অন্যদিকে চামড়া পাচার রোধে সীমান্তে বিজিবির টহল বাড়ানো হয়েছে। এতে করে দেশের স্থানীয় বাজারে আপাতত চামড়া কেনাবেচা করতে হচ্ছে। ফলে চাহিদা খানিকটা কম হওয়ায় দরপতন ঘটছে বলে দাবি কয়েকজন ব্যবসায়ীর।

 তাই বরগুনার চামড়া ব্যবসায়ীরা বিশেষ করে দাবি জানিয়েছেন চামড়া শিল্পকে বাঁচাতে হলে রপ্তানী বাড়ানোর পাশাপাশি চামরা ব্যবসায়ী ও ট্যানারী মালিকদের সহজ শর্তে ঋন সুবিধার দাবী জানিয়েছেন এ শিল্পের সাথে সংশ্লিষ্টরা।