বরগুনায় পর্যটন শিল্প উন্নয়নে প্রশাসনের পক্ষ থেকে সকল প্রকার সুযোগ-সুবিধা প্রদান করা হবে।

হাবিবুর রহমান মোঃআসাদুজ্জামান অপার সম্ভাবনাময় বরগুনা জেলাকে এগিয়ে নেওয়ার জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে সকল প্রকার সহযোগিতা করা হবে বলে সুরঞ্জনা ইকো ট্যুরিজম এন্ড রিসোর্ট এর ভিত্তিপ্রস্তর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখতে গিয়ে জেলা প্রশাসক হাবিবুর রহমান এ কথা বলেন। 

এলাকাবাসী উপস্থিতিতে আলোচনা সভায় তিনি বলেন, বরগুনা জেলার অনুন্নত কয়েকটি গ্রামের মধ্যে ঢলুয়া ইউনিয়নের বড়ইতলা ফেরিঘাটসংলগ্ন গোলবুনিয়া গ্রামটি খুবই অনুন্নত। এলাকায় প্রতিনিয়ত স্বাভাবিক জোয়ারে রাস্তাঘাট পানিতে তলিয়ে যায়।

বেড়িবাধর বাইরে অবস্থানরত পরিবারগুলো  চরম দুর্ভোগের মধ্যে জীবন যাপন করে। এই এলাকায় সুরঞ্জনা ইকো ট্যুরিজম এন্ড রিসোর্ট গড়ে ওঠায় এলাকাটিকে অবশ্যই উন্নয়নের আওতায় আনা হবে। অগ্রাধিকার ভিত্তিতে এই এলাকার মানুষের অন্যতম প্রধান দাবি অতিসত্বর রাস্তাটি নির্মাণ করা হবে। প্রয়োজনীয় উচ্চতায় এ রাস্তাটি নির্মাণ করা হলে জোয়ারের পানি এই জনবসতির মধ্যে প্রবেশ করতে না পারবে না।

পর্যটন শিল্পের উন্নয়নের সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে স্থানীয় জনগোষ্ঠীর সাথে আয়োজিত আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বরগুনা সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ মনিরুল ইসলাম, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সামিয়া শারমিন, বরগুনা প্রেসক্লাবের সভাপতি জহিরুল হাসান বাদশা, বন বিভাগের কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

ঢলুয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আজিজুল হক স্বপন এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন বরগুনা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি হাসানুর রহমান ঝন্টু, বেতারের স্টেশন ম্যানেজার মনির হোসেন কামাল, বরগুনা প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট গোলাম মোস্তফা কাদের, ঢালুয়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আবু হেনা মোস্তফা কামাল টিটু, বিশিষ্ট সমাজসেবক মোঃ আব্দুল খালেক প্রমুখ।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ মনিরুল ইসলাম বলেন, সুরঞ্জনা ট্যুরিজম এন্ড রিসোর্ট কে এগিয়ে নেয়ার জন্য উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা প্রদান করা হবে।


আরো বলেন, এই পর্যটন শিল্প প্রতিষ্ঠা হলে এলাকার খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষের ভাগ্যের চাকা খুব দ্রুত পরিবর্তন হবে।
বরগুনা সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সামিয়া শারমিন বলেন, পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর একটা সুরঞ্জনা ইকো ট্যুরিজম এন্ড রিসোর্ট এর কারণে খুব দ্রুতই উন্নয়নের পথে ধাবিত হবে। অবহেলিত এই এলাকার উন্নয়নের জন্য উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সকল সহযোগিতা প্রদান করা হবে।


অবশেষে জেলা প্রশাসক হাবিবুর রহমান সুরঞ্জনা ইকো ট্যুরিজম এন্ড রিসোর্ট এর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন ।এসময় উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ মনিরুল ইসলাম, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সামিয়া শারমিন, ঢলুয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো, আজিজুল হক স্বপন, সাবেক চেয়ারম্যান আবু হেনা মোস্তফা কামাল টিটু, প্রেসক্লাবের সভাপতি সাবেক সভাপতি জাকির হোসেন মিরাজ, হাসানুর রহমান, মনির হোসেন কামাল, বরগুনা প্রেসক্লাবের সিনিয়র সহসভাপতি জাফর হোসেন হাওলাদার, জেলা টেলিভিশন সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি আবু জাফর সালেহ, সুরঞ্জনা ইকো ট্যুরিজম এন্ড রিসোর্ট এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক জাফরিন নিতু, বনবিভাগের কর্মকর্তাগণসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

জেলা প্রশাসকের নেতৃত্বে সুরঞ্জনা ইকোট্যুরিজম এন্ড রিসোর্ট ঘুরে ঘুরে দেখা হয়।গোটা অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন সুরঞ্জনা ইকো ট্যুরিজম এন্ড রিসোর্ট এর স্বপ্নদ্রষ্টা, বরগুনা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট সোহেল হাফিজ।