বেড়েই চলছে’ ফরিদগঞ্জের হাটবাজার ও গ্রামাঞ্চলে মানুষের ভিড় !

ফরিদগঞ্জ প্রতিনিধি: মহামারী করোনা ভাইরাস সংক্রমন প্রতিরোধে সরকারের সচেতনতা নির্দেশনা মানছে না অনেকেই। ঢাকা থেকে ফরিদগঞ্জে বিভিন্ন স্থানে আসা লোকজন বাসা-বাড়িতে না থেকে প্রতিনিয়ত তারা নিজ নিজ এলাকায় হাটবাজার ও গ্রামের মানুষের সাথে মিলে মিশে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। আড্ডা জমাচ্ছেন চায়ের দোকানসহ বাজার ঘাটে। কিছুটা স্বাস্থ্য সচেতন কয়েকজনের মুখে মাস্ক থাকলেও অনেকেরেই এসবের কোনো গুরুত্ব নেই। এতে করে ঝুঁকিতে রয়েছে গ্রামের খেটে খাওয়া ও স্থায়ী বাসিন্দা সাধারণ মানুষ।

রবিবার ২৯শে মার্চ উপজেলার খাজুরিয়া বাজারে বিকেল ৫টার সময় গিয়ে দেখা যায় মানুষের উপচেপড়া ভিড়। কেউ মাছ কিনছে, কেউ কিনছে সবজি। আবার অনেকেই পাশের চায়ে দোকানে বসে আড্ডা দিচ্ছেন। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ে কোন চিন্তা নেই। তাছাড়া কড়ৈতলী বাজার,পাটওয়ারী বাজার,
রূপসা বাজার, বালীথুবা বাজার, একতা বাজার, মুন্সিরহাট, , চৌরঙ্গী বাজার, শাহীবাজার সহ গ্রামাঞ্চলের একই চিত্র দেখা গেছে।

করোনা ভাইরাস থেকে রক্ষা পেতে সচেতনতার লক্ষ্যে সবাইকে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার জন্য গত ২৬ মার্চ সরকারি ভাবে অনির্দিষ্ট কালের জন্য ছুটি ঘোষনা করা হয়। আর এই ছুটির সুযোগে ঢাকায় বসবাসরত বিভিন্ন পেশার মানুষ নিজস্থানে না থেকে যার যার গ্রামের বাড়িতে ছুটে চলেন।

একই সাথে ঢাকা থেকে ফরিদগঞ্জে হাজার, হাজার মানুষ বিভিন্ন গ্রাম অঞ্চলে আসেন। কিন্তু সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী তাদের প্রত্যেককে নিজ, নিজ বাসা বাড়িতে থাকার পরামর্শ দেয়া হলেও ঢাকা থেকে আগত ব্যক্তিরা প্রতিনিয়ত গ্রামের মানুষের সাথে মিলেমিশে ঘুরে বেড়াচ্ছেন।
স্বাস্থ সুরক্ষার জন্য যদিও নিয়ম রয়েছে প্রবাসীদের মতো তাদেরকে অন্তত ১৪ দিন হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে। কিন্তু এসব অসচেতন ব্যক্তিরা ঢাকা থেকে গ্রামে ফেরার পরপরই অন্যান্য সময়ের মতো স্বাভাবিক ভাবে ঘুরাঘুরি করে বেড়াচ্ছেন, মনে হচ্ছে ঈদের আনন্দ।
তাদের এমন ঘুরে বেড়ানোর কারণে ছড়াতে পারে সংক্রমণ।

ফরিদগঞ্জ প্রশাসন বিভিন্ন সময়ে বাজারে বাজারে এসে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশ দিলেএ তা মানেছে না চায়ের দোকান্দার ও ঢাকা থেকে আসা মানুষ গুলো।

সচেতন মহলের দাবি প্রশাসন যেনো খোঁজ খবর নিয়ে দ্রুত সময়ের মধ্যে ঢাকা থেকে আগত ব্যক্তিদের তালিকা সংগ্রহ করে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার জন্য কঠোর নির্দেশনা প্রদান করেন। তবেই একদিকে যেমন সরকারের নির্দেশনা বাস্তবায়িত হবে অন্যদিকে করোনা ভাইরাস সংক্রমনের ঝুঁকি কমবে বলে মনে করছেন চিকিৎসক মহল।