মরহুম দাদা ও বাবা-মায়ের মুখ উজ্জ্বল করতে চায় সাংবাদিক কন্যা নাশিত

দাদা মৃত খলিলুর রহমান ছিলেন একজন আদর্শ স্কুল শিক্ষক। শুধু নিজ গ্রামে নয়, ওই ইউনিয়নে সবার প্রিয় ছিলেন তিনি । এক নামে সবাই ডাকতো খলিল মাষ্টার। আজও তাঁকে মানুষ স্মরণ করে। 

দাদার সেই আদর্শ ও সম্মান ধরে রাখতে চায় তাঁর নাতিন সাবিকুন্নাহার নাহার নাশিত। সে চলতি বছরে অনুষ্ঠিত এসএসসি পরীক্ষায় জগন্নাথপুর হাজী এরশাদ মিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের বিজ্ঞান বিভাগ থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে।

নাশিত দৈনিক যুগান্তরের হাজীগঞ্জ প্রতিনিধি ও উপজেলার গন্ধর্ব্যপুর ইউনিয়নের আহম্মদপুর গ্রামের খালেকুজ্জামান শামীম এবং শাহিনা আহম্মেন হাছনু দম্পতির বড় মেয়ে। 

নাশিত পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের আয়োজনে কিশোর-কিশোরীদের প্রজনন স্বাস্থ্য বিষয়ক স্কুল ভিত্তিক প্রতিযোগীতা মুলক অনুষ্ঠান  ‘বর্ণীল কৈশোর’ এ সেরা দশের একজন গর্বিত প্রতিযোগি। 

সে পিইসিতে জিপি-৫ ও সাধারন গ্রেডে বৃত্তি পেয়েছিলো। তা ছাড়াও বিভিন্ন বেসরকারি বৃত্তি পরীক্ষায় ট্যালেন্টপুল বৃত্তি পায়। উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করে যেন, মরহুম দাদা ও বাবা-মায়ের মুখ উজ্জ্বল করতে পারে, তার জন্য দোয়া চেয়েছেন নাশিত।

নিজস্ব প্রতিনিধি/