যানবাহন সংকটে কাঙ্খিত পুলিশি সেবা থেকে বঞ্চিত ফরিদগঞ্জ উপজেলাবাসি

মোঃ আলআমিন,ভ্রাম্যমান প্রতিনিধিঃ ফরিদগঞ্জে জনসংখ্যা এবং আয়তনের দিক থেকে চাঁদপুর জেলার  বৃহৎ উপজেলা ফরিদগঞ্জ।বিশাল আয়তন এবং ঘনবসতিপূর্ন উপজেলার জনগনের জানমালের নিরাপত্তা ও আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে হিমশিম খাচ্ছে থানা পুলিশ।

সুত্রমতে প্রায় পাঁচ লাখ জনসংখ্যার বিপরীতে থানা পুলিশে নিয়োজিত আছে অর্ধশত পুলিশ সদস্য।তারমধ্যে গৃদকালিন্দিয়া ফাঁড়িতে আছে ৮-১০ জন সদস্য। জনসংখ্যা এবং আয়তনের তুলনায় নেই পর্যাপ্ত যানবাহন,একটি মাত্র সচল গাড়ির মাধ্যমে চলে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখার যুদ্ধ।ভিআইপি প্রটোকলের জন্য সেই গাড়িটিও যখন থাকে ব্যাস্ত,তখন বিকল্প একমাত্র উপায় রিকোজিশন করা সিএনজি অটোরিক্সা।দূরত্ব এবং ধীরগতির কারনে যথা সময়ে দূর্ঘটনাকবলিত স্থানে পৌছানে কখনোই সম্ভব হয় নাই।প্রবাদ বাক্যের মত-চোর পালানোর পরে পুলিশ উপস্থিত হয়।

ফরিদগঞ্জ উপজেলাকে ঘিরে আছে লক্ষীপুর জেলার রায়পুর ও রামগঞ্জ উপজেলা,চাঁদপুর জেলার সদর,হাইমচর ও হাজীগঞ্জ উপজেলা।সীমান্তবর্তী এসকল উপজেলার যাতায়াত ব্যবস্থা উন্নত হওয়ার কারনে অপরাধীরা উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় অপরাধ করে দ্রুত সময়ে স্থান ত্যাগ করতে সক্ষম হয়।বিশাল এলাকার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে এবং দূর্ঘটনাকবলিত এলাকায় পৌছাতে দরকার দ্রুতগামীর যানবাহন।দীর্ঘদিন ধরে এ বিষয়ে রাষ্ট্রের উচ্চপর্যায়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করেও কোন সুফল পাওয়া যায়নি।চাঁদপুর জেলায় পরপর তিনবার শ্রেষ্ঠ ওসি নির্বাচিত হওয়া ফরিদগঞ্জ থানার ওসি আব্দুর রকিবও যানবাহনের কারনে নাগরিক সেবা প্রদানে অসহায়ত্বের কথা জেলা পুলিশের মাসিক অপরাধ সভা এবং ফেসবুক স্ট্যাটাসের মাধ্যমে প্রকাশ করেছেন।

উপজেলা কমিউনিটি পুলিশের সভাপতি হেলাল উদ্দিন আহম্মদ এপ্রতিনিধিকে জানান-আমরা দায়িত্ব নেওয়ার পরে আন্তরিকতার সাথে থানা পুলিশকে সর্বাত্বক সহযোগিতা করে যাচ্ছি,কিন্তু থানা পুলিশের আন্তরিকতা থাকা সত্তেও তারা আমাদের পর্যাপ্ত সাপোর্ট দিতে পারছেনা,কারন থানা পুলিশের দূর্ঘটনাস্থলে পৌছানোর জন্য কোন দ্রুতগামী যানবাহন নাই।যে কারনে অপরাধীরা অপরাধ করে নির্বিঘ্নে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়,বিশেষ করে সীমান্তবর্তী উপজেলা থেকে মাদক ব্যাবসায়ীরা আমাদের উপজেলায় এসে মাদক বিক্রি করে  নিরাপদে চলে যেতে সক্ষম হয়।অন্য এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ প্রতিনিধিকে জানান,ফরিগঞ্জের বর্তমান এমপি সাংবাদিক শফিকুর রহমান আন্তরিকতা ও দায়িত্বের সাথে থানা পুলিশের যানবাহন সমস্যার সমাধানের সর্বাত্বক চেষ্টা করছেন।