রাজানগর ইউপি নির্বাচনে নৌকা’র মনোনয়ন প্রত্যাশী :নওশেরান চৌধুরী

স্টাফ রিপোর্টারঃ করোনাভাইরাস মহামারির শেষ কবে, বিশ্ব জুড়ে এমন প্রশ্নের উত্তর এখনো অজানা হলেও বাংলাদেশ সরকার প্রধান দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলায় নিয়েছেন নানা প্রস্তুত। এর মধ্যেই দেশে সময় ঘনিয়ে আসছে স্থানীয় সরকার ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি)  নির্বাচন দুয়ারে কড়া নাড়ছে।  

 রাজানগর ইউপি   নির্বাচনকে ঘিরে দল থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশীরা প্রচার-প্রচারণায় ব্যস্ত হয়ে উঠেছেন । আসন্ন রাজানগর ইউনিয়ন পরিষদ   নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে দল থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী গচিয়া চৌধুরী বাড়ীর সন্তান এলাকার অসহায় মানুষের বন্ধু বিশিষ্ট সমাজ সেবক  নওশেরান চৌধুরী । রাজনীতিতে সর্বদা অগ্রভাগে থাকলেও দল থেকে পাননি তেমন কিছুই বলে দাবি স্থানীয় অনেকের। তবুও শতভাগ আশা নিয়ে মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন নওশেরান চৌধুরী’র সমর্থকরা।

 নওশেরান চৌধুরী  বিগত  নির্বাচনে নৌকার মনোয়ন প্রত্যাশী ছিলেন, কিন্তু অজানা কারনে নৌকার টিকেট থেকে বঞ্চিত হন তিনি। তবে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী ছাড়াও দল থেকে একাধিক প্রার্থীর নির্বাচনে অংশগ্রহণে কোন বাঁধা না থাকায় কর্মী সমর্থকদের ভালোবাসা নিয়ে স্বতন্ত্র থেকে রাজানগর ইউনিয়নে  চেয়াম্যান পদে নৌকার বিপক্ষে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করে বিজয়ের দ্বারপ্রান্তে ছিলেন তিনি।

ওই নির্বাচনে  অধীনস্থ ১২টি ওয়ার্ডের মাঝে ৮টি ওয়ার্ডে বিপুল ভোটে বিজয়ী হন তিনি। ওই পরাজয়ের শোক কাটিয়ে তুলতে এবারও তিনি নৌকা মার্কার টিকেট এর প্রত্যাশী।এলাকা ঘুরে জানা যায়, রাজনৈতির মাঠে সর্বদা উজ্জ্বল এ নেতা বিভিন্ন আন্দোলন সংগ্রামসহ দলীয় কর্মকাণ্ডে সব সময় সামনে থেকে নেতাকর্মীদের উৎসাহ ও প্রেরণা জুগিয়ে চলেন নওশেরান চৌধুরী । রাজনীতিতে সর্বদা অগ্রভাগে থাকলেও দল থেকে পাননি কিছুই । 

নওশেরান চৌধুরী এলাকার সাধারণ মানুষের বিভিন্ন দু:খ-দুর্দশায় সর্বদা তাদের পাশে গিয়ে দাঁড়ান এবং এই করোনা মহামারিতেও সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন। অর্থাভাবে কোন শিক্ষার্থীর পরিবার যদি শিক্ষার ব্যয়ভার চালাতে না পারে তবে তিনি স্ব উদ্যোগে ওই শিক্ষাথীর ব্যয় বহন করেন। এমন নজির অগণিত। এলাকার মানুষ দু:সময়ের বন্ধু হিসেবে তাকে জানেন ও মানেন।শুধু গরিব অসহায়দের প্রতিই নয় তিনি দলীয় নেতাকর্মীদের দু:সময়ে তাদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন। সব সময় তৃণ মুলের নেতাকর্মীদের খোঁজখবরসহ তাদের যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছেন।

অতীতকে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে নিবেন দলীয় নেতাকর্মীরা এ মনোবল নিয়ে সকল সকল ভেদাভেদ ভুলে রাজানগর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে  আওয়ামী লীগ থেকে মনোয়ন প্রত্যাশি নওশেরান চৌধুরী   সাবেক এই সফল একজন সমাজ সেবক। বেশ কয়েকজন সমর্থকের সাথে কথা হয় এ প্রতিবেদকের। তারা বলেন, বিগত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে  স্বতন্ত্র থেকে নওশেরান চৌধুরী  সমর্থকদের প্রচার প্রচারণা তুঙ্গে ছিল। তিনি রাজানগর ইউনিয়নে  ৮টা ওয়ার্ডে বিপুল ভোটে নির্বাচিত হন। আর তাই বলা যায় এবার তিনি যদি ইউপি নির্বাচনে  নৌকা মার্কা মনোনয়ন পান তাহলে চেয়ারম্যান  নির্বাচিত হবেন বলে আশা করা যায়।

নওশেরান চৌধুরী বলেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও বিশ্বের সেরা প্রধানমন্ত্রী মমতাময়ী মা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃকে বুকে লালন করে আমিসহ আমার পরিবারের সবাই আওয়ামী রাজনীতিকে আগলে ধরে রেখেছি। আমি শৈশব থেকে আওয়ামী লীগের রাজনীতি করে আসছি। আমার কর্মী সমর্থকরা আমাকে নিয়ে অনেক স্বপ্ন দেখে। তাদের ভালোবাসা আমাকে উৎজ্জীবিত করে তুলে। দল ও হাজারও কর্মী সমর্থকদের ভালোবাসা নিয়ে আমি এবার রাজানগর ইউপি  নির্বাচনে মনোনয়ন প্রত্যাশী।