সাধু সাবাধান হও : ইতিহাস থেকে শিক্ষা নাও

বাংলাদেশের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর তথ্য প্রযুক্তির উন্নয়নে অর্জিত সফলতার অন্তরায় হয়ে প্রশাসনের কিছু অসাধু লোক সহ যারা এ প্রযুক্তির উন্নয়নে সহযোগীতার পরিবর্তে বাধাগ্রস্ত ও ব্যাহত করার জন্য সাফাই ও সাপোর্ট দেওয়ার চেষ্টা করেছেন, তাদের পরিনতি হবে সে কালের টেলিগ্রাফ অফিস ও স্টাফ, ডাক বিভাগ, সহ সদ্য অবহেলিত বিদ্যুৎ মিটার রিডারদের মতই।

যে টেলিগ্রাফ অফিসে মানুষের ভিড়ে আগে দাড়ানোই যেতো না, সে টেলিগ্রাফ অফিসে এখন কেউ পস্রাব করতেও যায় না। তাই মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ও তার তনয় তথ্য-উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় এর স্বপ্নে গড়া বাংলার এই তথ্য প্রযুক্তি উন্নয়নে বাধাগ্রস্ত ও ব্যহত করার ষড়যন্ত্র কারীদের তালিকা তৈরী করে, যথাযথ কতৃপক্ষের মাধ্যমে ব্যবস্থা গ্রহন করে অনলাইন সৈনিকগণ অভিষ্ট লক্ষ্যে পৌছবেন।

সেদিন এতোই সন্নিকটে যে, তোমাদের পত্রিকাগুলো অনলাইন ভার্সনে চলে যাবে; তাছাড়া আর কোন গত্যন্তর থাকবে না। তার কিছুটা এখনই লক্ষ্যনীয়।

সারা পৃথিবীতে প্রেস ক্লাব মানেই অনলাইন প্রেস ক্লাব তাই সাধু সাবাধান হও : ইতিহাস থেকে শিক্ষা নাও

জয় হৌক মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর, জয় হোক তথ্য উপদেষ্টার, জয় হোক তথ্য-মন্ত্রীর।

মনজুর পাটওয়ারী
ডিজিটাল গণমাধ্যমাম গবেষক