সুনামগঞ্জের জাউয়া বাজারে আ’লীগের দুই গ্রুপের মধ্য পাল্টা ধাওয়া,গুরুতর আহত ১৫ জন

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি: সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার জাউয়া বাজারে আওয়ামীলীগের দুটি গ্রুপের মধ্যে গত কয়েকদিন ধরে উত্তেজনাকে কেন্দ্র করে একটি প্রতিবাদ মিছিলে প্রতিপক্ষের লোকজনের হামলা ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ায় উভয় পক্ষের শতাধিক লোকজন আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে ১৫ জনের অবস্থা আশংঙ্কাজনক হওয়ায় তাদেরকে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টায় এই সংঘর্ষের ঘটনাটি ঘটে। স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়. বিকেলে সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের তথ্য ও গবেষনা সম্পাদক মোঃ শামীম আহমদ চৌধুরী গ্রুপের গত জাউয়া বাজার কলেজ ছাত্রলীগের এক নেতাকে গত ২৬ নভেম্বর জেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি ও স্থানীয় সংসদ সদস্য মহিবুর রহমান মানিক গ্রুপের নেতাকমর্ীরা মারধোর করে আহত করে।

এই ঘটনার জেরে শামীম গ্রুপের লোকজন আজ জাউয়াবাজার এলাকার ফুলকলি দোকানের সামনে জড়ো হয়ে একটি প্রতিবাদ মিছিল বের করে। এ সময় হঠাৎ করে এমপি গ্রুপের লোকজন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে মিছিল হামলা চালিয়ে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এক কিছুক্ষণ পরে শামীম গ্রুপের নেতাকমর্ীরা আবারো জড়ো হয়ে মিছিল করতে চাইলে উভয় গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে। দেড় ঘন্টাব্যাপী এ সংঘর্ষে উভয়পক্ষের শতাধিক নেতাকর্মীরা আহত হয়েছেন।

এদের মধ্যে ১৫ জনের অবস্থা আশংঙ্কাজনক হওয়ায় তাদেরকে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে এবং বাকি আহতদের স্থানীয় কৈতক স্বাস্থ্য কমপ্লেক্রে চিকিৎসা সেবা দেয়া হচ্ছে। খবর পেয়ে ছাতক থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মোস্তফা কামালের নেতৃত্বে বিপুল সংখ্যক পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে ৫০ রাউন্ড শর্চগানের গুলি ও ২৬ রাউন্ড গ্যাস গান ব্যবহার করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে।

গুরুতর আহতরা হলেন,মোঃ আল-আমনি(২৬),রুবেল(২৫),ঝোলন(৩০),আশরাফ মিয়া(২০) ও সৌরভ(২০)। এই ৫ জনের নাম ও পরিচয় জাান গেলে ও বাকিদের নাম ও পরিচয় তাৎক্ষণিক জাান সম্ভব হয়নি।

এ ব্যাপারে ছাতক থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মোস্তফা কামাল সংঘর্ষের ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান,পুলিশ এসেই শর্টগানের ও গ্যান গান ব্যবহার করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে।