বরগুনায় করোনা পরিস্থিতি স্থিতিশীল রয়েছে

বরগুনা প্রতিনিধি: বরগুনায় করোনা পরিস্থিতি স্থিতিশীল রয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুর পর্যন্ত নতুন কোন রোগী শনাক্ত না হওয়ায় আক্রান্তের সংখ্যা হলো ৩০ জন। তাদের মধ্যে ১৮ জন চিকিৎসাধীন রয়েছেন, ১০জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন এভং দুই জন মৃত্যুবরণ করেছেন। তবে জেলায় এখনও ৪৭৩ জন কোয়ারেন্টাইনে এবং ১৮জন আইসোলেশনে আছেন।

সিভিল সার্জনের কার্যালয় থেকে প্রাপ্ত তথ্যমতে, বরগুনায় গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে এসেছেন চারজন। এ পর্যন্ত প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন ৪০৪ জন। তাদের মধ্যে ৩২০ জন প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন শেষ করে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে গেছেন। বাকী ৮৪ জন প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে আছেন। এছাড়া, বরগুনায়  ২৪ ঘন্টায় নতুন করে হোম কোয়ারেন্টাইনে এসেছেন ১০ জন। এ পর্যন্ত হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন এক হাজার ১৩১ জন। তাদের মধ্যে ৭৪১ জন কোয়ারেন্টাইন শেষ করে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে গেছেন। বাকী ৩৯১ জন হোম কোয়ারেন্টাইনে আছেন। তাছাড়া, পাঁচজন প্রাতিষ্ঠানিক আইসোলেশনে এবং ১৪ জন হোম আইসোলেশনে আছেন।

সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ হুমায়ুন শাহিন খান জানিয়েছেন, বরগুনায় নতুনকরে কেউ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়নি। বৃহস্পতিবার দুপুর পর্যন্ত নতুন কোন রোগী শনাক্ত না হওয়ায় আক্রান্তের সংখ্যা হলো ৩০ জন। তাদের মধ্যে ১৮জন চিকিৎসাধীন রয়েছেন, ১০ সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন এভং দুই জন মৃত্যুবরণ করেছেন। তিনি আরও জানান, এ পর্যন্ত জেলার মোট ৬২১ জনের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে। এরমধ্যে ৫০৯ জনের ফলাফল পাওয়া গেছে। বাকীদের ফলাফল পর্যায়ক্রমে পাওয়া যাবে।
এদিকে, বরগুনায় করোনামুক্ত হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন মোট ১০জন।  বরগুনা সদর উপজেলার খাকবুনিয়া গ্রামের মোঃ খালেক সিকদার (৭৫) এবং মাইঠা গ্রামের মোঃ আলমগীর (৫০), শহরের কেজি স্কুল সড়কের আবুল বাশার (৬৬) এবং বামনা উপজেলার ডৌয়াতলা এলাকার মমতাজ বেগম (৪৬) চিকিৎসা শেষে হাসপাতাল ত্যাগ করেছেন। তাছাড়া, রবিবার দুপরে বরগুনা সদর উপজেলার খাকবুনিয়া গ্রামের মোঃ রাব্বী (২৬) ও মাইঠা গ্রামের মোঃ আমির হোসেন (১৬) এবং শুক্রবার বিকেলে একই উপজেলার খাকবুনিয়া গ্রামের মোঃ সেলিম (৬০) এবং ঘটবাড়িয়া গ্রামের মোঃ হিরন খানও (৩৫) এনামুল সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন।